নিউজ সাইট ( News site ) কিভাবে তৈরি করেবেন

নিউজ সাইট (News site) কি?

যে সাইটে দৈনিক দেশ বিদেশের খবরা খবর পাওয়া যায় তাকে নিউজ সাইট (News site) বলে। বর্তমানে নিউজ সাইট প্রচুর জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। সব স্থানেই নিউজ সাইটের প্রাওরিটি অনেকটা বেশি।

 
 

কেনো নিউজ সাইট (News site) তৈরি করবেন?

 

আপনি একজন সাংবাদিক হতে চান কিন্তু হতে পারছেন না তাহলে নিজস্ব একটি নিউজ সাইট খুলে নিজের প্রতিভা দেখিয়ে দিতে পারেন বিশ্ববাসীকে। এমনকি একটি নিউজ কোম্পানিতে কাজ করার থেকেও বেশি টাকা ইনকাম করতে পারেন একটি নিউজ সাইট থেকে। বর্তমানে বিভিন্ন কারনে অনেকে সাংবাদিক হতে পারছে না। তাদের অনেকে এমন নিউজ সাইট তৈরি করে সেখানে নিউজ লিখছে এবং আয় করছে। আবার যারা বাড়িতে বসে আছে এবং টুকিটাকি টাইপিং করতে পারে তারাও এরকম সাইট তৈরি করে ইনকাম করছে। তাহলে আপনি কেনো ব্যতিক্রম হবেন। নিজের এলাকার অথবা বাইরের খবরা খবর নিজের লেখনীর মাধ্যমে পৌঁছে দিতে পারেন সবার মাঝে। বর্তমানে সকল প্লাটফর্মেই নিউজ সাইট গুলোকে একটু আলাদা সম্মান দেওয়া হয়। অতএব একটি নিউজ সাইটের মুল্য ইন্টারনেটের দুনিয়ায় অনেকটাই বেশি।
 
 
নিউজ সাইটের সুবিধা
 

অন্যান্য সাইটের থেকে নিউজ সাইটের প্রচুর সুবিধা পাওয়া যায়। ইন্টারনেটে বেশিরভাগ প্লাটফর্মে নিউজ  সাইট গুলোকে একটি আলাদা মর্যাদা দেওয়া হয়। যেমন ফেসবুকে আলাদা করে নিউজ ট্যাব আছে যেখানে সবাই নিউজ পড়তে বা দেখতে পারে। আবার গুগলের আলাদা করে গুগল নিউজ নামে অ্যাপ এবং ওয়েবসাইট আছে যেখানে তৎক্ষনাৎ দেশ বিদেশের নিউজ পাওয়া যায়। এখন প্রশ্ন হতে পারে সেই নিউজ গুলো কি গুগল নিজে দেই? এই নিউজ গুলো বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট এবং ইউটিউব চ্যানেল থেকে প্রকাশ করা হয়। আবার গুগলের সার্চ ইঞ্জিনে আলাদা করে নিউজ ট্যাব আছে। আপনি যা সার্চ করছেন সেই সমন্ধে কোনো নিউজ থাকলে নিউজ ট্যাবের মাধ্যমে দেখে নিতে পারবেন। এ নিউজ গুলোও বিভিন্ন ওয়েবসাইট থেকে দেখানো হয়। অতএব বোঝায় একটি নিউজ সাইটের প্রচুর চাহিদা।
 
 
 
নিউজ সাইটের অসুবিধা
 

নিউজ সাইটের যেমন সুবিধা আছে ঠিক তেমনি অনেক অসুবিধাও আছে। বেশিরভাগ প্লাটফর্ম একটি নিউজ সাইটকে আলাদা মর্যাদা দিলেও দৈনিক নিউজ প্রকাশিত না হলে সেই সাইটের মর্যাদা দীর্ঘস্থায়ী থাকে না। অর্থাৎ দৈনিক কমপক্ষে দুই থেকে তিনটা পোস্ট করাই লাগবে। আরেকটি বড় সমস্যা নিউজ সাইটের ক্ষেত্রে দেখা যায়। নিউজ সাইটের কোনো পোস্ট দীর্ঘদিন র‌্যাংকে থাকে না আবার থাকলেও যে কিওয়ার্ডে র‌্যাংকে আছে সেই কিওয়ার্ড সবসময় ট্রেন্ডিং এ থাকে না। একটি উদাহরণ দিয়ে বোঝালে ভালো হয়। কয়েক বছর আগে রোহিঙ্গাদের নিয়ে বাংলাদেশে অনেক তোলপাড় চলছিল যার কারনে রোহিঙ্গা সম্পর্কিত কিওয়ার্ড বলতে গেলে ট্রেন্ডিং এ ছিলো। তখন যারা রোহিঙ্গাদের নিয়ে নিউজ প্রকাশ করেছিল অবশ্যই তাদের নিউজ অনেক লোক দেখেছিল। কিন্তু এখন রোহিঙ্গাদের নিয়ে আর কোনো চর্চা হয় না যার কারনে গুগলে বা অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনে তাদের সম্পর্কে আর সার্চ হয় না। এখন যাদের সাইটের পোস্ট রোহিঙ্গা সম্পর্কিত কিওয়ার্ড র‌্যাংক করেছে তারাও আর ভিজিটর পাবে না। অর্থাৎ নিউজ সাইটের এটিই সবথেকে বড় সমস্যা যে একটি পোস্ট কখনই দীর্ঘস্থায়ী ট্রেডিং এ থাকে না। আবার আরেকটি সমস্যা হলো বর্তমানে নিউজ সাইট প্রচুর বেড়ে গিয়েছে যার কারনে তাদের সাথে টক্কর দেওয়া অনেক মুশকিল হয়ে উঠেছে। আবার নিউজ সাইটে প্রতিদিন পোস্ট করতে হয় এবং নিউজের জন্য সবসময় এক্টিভ থাকতে হয়। এই সমস্যা গুলো কাটিয়ে উঠতে পারলে আপনি নিউজ সাইট তৈরি করতে পারেন।
 
 
 
নিউজ সাইট থেকে ইনকাম
 

বর্তমানে নিউজ সাইট থেকে বিভিন্ন ভাবে ইনকাম করা যায়। যেহেতু একটি নিউজ সাইটে প্রচুর ভিজিটর থাকে তাই অনায়াসে অনেক টাকা চাইলেই ইনকাম করা যায়। কিন্তু কিভাবে ইনকাম করবেন চলুন দেখে নিই।
গুগল এডসেন্স: নিউজ সাইট থেকে ইনকামের প্রধান উৎস হলো গুগল এডসেন্স। পৃথিবীর সবথেকে বড় বিজ্ঞাপন দাতা প্লাটফর্ম গুগল এডসেন্স। দিন দিন এর জনপ্রিয়তা বেড়েই চলেছে। গুগল এডসেন্স বিভিন্ন ধরনের ছোট বড় কোম্পানির বিজ্ঞাপন প্রচার করে। এবং যাদের মাধ্যমে প্রচার করে তাদেরকে অধিকাংশ অর্থ দিয়ে বাকি অর্থ নিজের কাছে রেখে দেই। এতে যে বিজ্ঞাপন প্রচার করছে এবং যে বিজ্ঞাপন দিচ্ছে তাদের দুই পক্ষেরই লাভ থাকে। বর্তমানে নিউজ সাইটে খুব সহজে গুগল এডসেন্স এপ্রুভ পাওয়া যায়। এবং আপনার নিউজ সাইটে অনেক ভিজিটর থাকলে গুগল এডসেন্সের মাধ্যমে মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা ইনকাম করা তেমন কোন বিষয় না। হয়তো অবাক হচ্ছেন যে এডসেন্সের মাধ্যমে এতো টাকা ইনকাম করা যায়! হ্যা অনেকেই ইনকাম করছে। আগে বাংলা আর্টিকেলে এডসেন্স তেমন টাকা দিত না কিন্তু কিছুদিন থেকে বাংলা আর্টিকেলেও এডসেন্স প্রচুর টাকা দিচ্ছে।

 

ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল: ২০১৮ সালে ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল চালু করে। আর্টিকেল রাইটারদের পারিশ্রমিক দেওয়ার জন্য ফেসবুক এই উদ্যোগ গ্রহন করে। এডসেন্সের মতো ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলও ফেসবুক বিজ্ঞাপন দেখাই এবং সেই বিজ্ঞাপন থেকে ইনকাম হয়। ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের জন্য আপনার একটি ওয়েবসাইট এবং ফেসবুক পেজ থাকতে হবে। আর নিউজ সাইট ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের জন্য একেবারে পারফেক্ট। ফেসবুক ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এপ্রুভ পেতে হলে আপনাকে দৈনিক পোস্ট করা লাগবে আর নিউজ পোর্টাল সাইটে এমনিতে দৈনিক পোস্ট করা লাগে। এরপর আপনাকে সেই পোস্টের লিংক ফেসবুক পেজে পোস্ট করা লাগবে। ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এপ্রুভ পেলে ফেসবুক আপনার পোস্টকে আলাদা করে র‌্যাংক করাবে। এবং কেও যদি সেই লিংকে ক্লিক করে তাহলে কোন ব্রাউজারে নিয়ে যাবে না ফেসবুক সোজাসুজি আর্টিকেলটি দেখাবে এবং সেই আর্টিকেল দশ গুন স্পিডে লোড নেবে। তবে অসুবিধা হলো এই সুযোগ শুধু ফেসবুকের মোবাইল অ্যাপে। এমনকি ফেসবুক লাইট অ্যাপে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল দেখাই না। তবে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের কিছু সুবিধা অসুবিধা আছে।
 
ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের সুবিধা
  • দশ গুন দ্রুত পেজ লোড নেই তাই সবাই আর্টিকেল পড়তে স্বাছন্দ্য বোধ করে।
  • ফেসবুক আলাদা করে আর্টিকেল র‌্যাংক করে তাই ভিজিটর বেশি পাওয়া যায়।
  • যে পেজে ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এপ্রুভ হয়েছে সেই পেজের রিচ অনেক বেড়ে যায়।
  • ইউজার ফ্রেন্ডলি বিজ্ঞাপন ফেসবুক দেখাই বলে কেও তেমন বিরক্ত হয় না।
 
 
ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের অসুবিধা
  • সাইটের পেজ অনেক দ্রুত লোড নেই বলে সাইটের অন্যান্য উইডজেট ভালো ভাবে কাজ করে না।
  • ওয়েবসাইটের অর্গানিক ভিজিটর কমে যায় কিন্তু গুগল থেকে র‌্যাংক কমে না।
  • শুধু মোবাইলে এই সুবিধা থাকাই সবাই ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের সুবিধা পাই না।
 
 

এই অসুবিধা ছাড়া ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের আর কোনো অসুবিধা নেই। বর্তমানে বাংলাদেশের অনেক নিউজ সাইট ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেলের সাথে যুক্ত হয়েছে তার মধ্যে বিডি নিউজ ২৪ একটি। আপনিও ইনস্ট্যান্ট আর্টিকেল এপ্রুভ নিয়ে আনলিমিটেড ইনকাম করতে পারেন।

 
স্পন্সর: নিউজ সাইটে অনেক ভিজিটর থাকাই অনেক ছোট বড় কোম্পানি তাদের বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য নিউজ সাইট গুলোকে টার্গেট করে। এর জন্য তারা মোটা টাকা খরচ করতেও রাজি থাকে। বর্তমানে নতুন কোম্পানি গুলোর পন্যের বহুল প্রচারের প্রয়োজন হয় তাই একটি সঠিক মাধ্যম তাদের খুজে নিতে হয়। নিউজ সাইটে যেহেতু বিভিন্ন পেশার মানুষ থাকে তাই সেখানে কাস্টমার পাওয়া অনেক সহজ হয়ে যায়। আপনি যদি খেয়াল করেন তাহলে দেখবেন জনপ্রিয় নিউজ সাইট গুলোতে গুগল এডসেন্সের বিজ্ঞাপনের পাশাপাশি অন্যান্য স্পন্সর বিজ্ঞাপন থাকে। জনপ্রিয় সাইট গুলো গুগল এডসেন্সের থেকেও স্পন্সর নিয়ে বেশি টাকা ইনকাম করে। আপনিও আপনার নিউজ সাইট দিয়ে স্পন্সর নিয়ে ইনকাম করতে পারেন। তবে এর জন্য আপনার সাইটে প্রচুর পরিমাণে ভিজিটর থাকতে হবে। এবং যে আপনাকে স্পন্সর দেবে সে যেন যোগাযোগ করতে পারে তার একটি মাধ্যম থাকতে হবে। কয়েক মাসের চুক্তিতে আপনি স্পন্সর নিয়ে একসাথে অনেক টাকা আয় করতে পারেন। বর্তমানে অনেকে স্পন্সর নিয়ে প্রচুর টাকা আয় করছে। এভাবে এক মোটে অনেক টাকা ইনকাম হয়। আপনার সাইটে ভিজিটর থাকলে এমনিই স্পন্সর অফার আসবে এবং আপনি সেই অফার গ্রহন করে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।
 
 

আফিলিয়েট মার্কেটিং: সাইড ইনকাম হিসেবে আপনি আফিলিয়েট মার্কেটিং করতে পারেন। অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে আফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম করা যায়। আপনি তাদের বিজ্ঞাপন দেখিয়ে আফিলিয়েট মার্কেটিং করে ইনকাম করতে পারেন। আপনি যে ওয়েবসাইটের বিজ্ঞাপন দেখাবেন সেই বিজ্ঞাপনের সুত্র ধরে কেও যদি সেই পন্য কেনে তাহলে আপনি কিছু কমিশন পেয়ে যাবেন অর্থাৎ আপনি কিছুটা ইনকাম করতে পারবেন। অনেকে সাইড ইনকাম হিসেবে আফিলিয়েট মার্কেটিং করে। এতে সাইটের তেমন কোনো প্রভাব পড়ে না। এর ফলে আপনার হাত খরচ হয়ে যাবে।
 
 
কিভাবে নিউজ সাইট তৈরি করবেন?
 

বিভিন্ন প্লাটফর্ম আছে যার মাধ্যমে একটি নিউজ সাইট তৈরি করা যায়। বর্তমানে বেশিরভাগ লোক ওয়ার্ডপ্রেস, ব্লগার এবং কোডিং করে ওয়েবসাইট তৈরি করছে। তবে তাদের মধ্যে বেশিরভাগ লোক ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করে ওয়েবসাইট তৈরি করে। এর মধ্যে ব্লগার দিয়ে আপনি ফ্রিতে একটি নিউজ সাইট তৈরি করতে পারবেন। চলুন দেখে নিই একটি নিউজ সাইট তৈরি করতে কোন প্লাটফর্ম ব্যবহার করবেন এবং কত খরচ হবে।
 
 

ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে নিউজ সাইট তৈরি
 

সবথেকে জনপ্রিয় ওয়েবসাইট তৈরি করার প্লাটফর্ম ওয়ার্ডপ্রেস। পৃথিবীর ১০০ টি ওয়েবসাইটের মধ্যে প্রায় ৪০ টি ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে তৈরি করা হয়। অর্থাৎ বোঝায় যাচ্ছে প্রায় ৪০% ওয়েবসাইট ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে তৈরি। বর্তমানে ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট তৈরি করা যায় কিন্তু বেশিরভাগ লোক ই-কমার্স, নিউজ এবং ম্যাগাজিন সাইট ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে তৈরি করে। তবে ওয়ার্ডপ্রেস ফ্রি ওয়েবসাইট তৈরি করার প্লাটফর্ম হলেও এখানে আপনাকে অনেক খরচ করা লাগবে। চলুন দেখে নিই ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে নিউজ ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে কি কি প্রয়োজন।

হোস্টিং: ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে নিউজ সাইট করতে চাইলে অবশ্যই একটি ভালো মানের হোস্টিং প্যাকেজ কেনা লাগবে। বর্তমানে কিছু স্থান থেকে ফ্রিতে হোস্টিং পাওয়া যায় কিন্তু সেগুলোর লোডিং স্পিড একেবারেই খারাপ। হোস্টিং কে বলতে পারেন আপনার ওয়েবসাইটের স্টোরেজ। আপনি ওয়েবসাইটে কি লিখছেন বা আপলোড দিচ্ছেন সেটি একটি স্থানে জমা হয় তাকে হোস্টিং বলে। ওয়েবসাইটের জন্য হোস্টিং খুবই জরুরী। কারন ওয়েবসাইটের বেশিরভাগ স্পিড হোস্টিং এর উপর নির্ভর করে। বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক ওয়েবসাইট আছে যেখানে বিকাশ, নগদ, রকেট ইত্যাদির মাধ্যমে হোস্টিং কিনতে পাওয়া যায়। তার মধ্যে ডায়ানা হোস্ট, এক্সন হোস্ট অন্যতম।
ডোমেইন: আমাদের প্রত্যেকের বাড়ির যেমন একটি নির্দিষ্ট ঠিকানা থাকে ঠিক তেমনি আপনার ওয়েবসাইটের একটি ঠিকানা প্রয়োজন। ডোমেইন হলো আপনার ওয়েবসাইটের ঠিকানা। একটি সুন্দর নামের ডোমেইন কেনা অত্যন্ত জরুরি। কারন ডোমেইন যত ছোট এবং সাধারণ হবে তত মানুষ আপনার ওয়েবসাইট সহজে খুজে পাবে। বর্তমানে ছোট এবং সাধারণ নামের ডোমেইন খুজে পাওয়া একটু কষ্টকর হয়ে গিয়েছে। তবে একটু পরিশ্রম করলে খুব সহজেই ভালো মানের ডোমেইন খুজে পাওয়া যায়। বর্তমানে বিভিন্ন ধরনের ডোমেইন এক্সটেনশন আছে। তার মধ্যে .com এক্সটেনশন সবথেকে বেশি জনপ্রিয়। বাংলাদেশ থেকেও বিকাশ, রকেট এবং নগদের মাধ্যমে ডোমেইন কেনা যায়। তবে পেপাল অথবা ডেবিট কার্ড থাকলে নেমচিপ থেকে ডোমেইন কিনতে পারেন। বাংলাদেশে ডায়ানা হোস্ট, পুতুল হোস্ট, এক্সন হোস্ট কম টাকায় ডোমেইন দিয়ে থাকে।
থিম: ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে নিউজ সাইট তৈরি করতে হলে অবশ্যই একটি নিউজ থিম প্রয়োজন। থিম হলো আপনার সাইটের কাঠামো। আপনার সাইট দেখতে কেমন হবে, কি সুবিধা থাকবে, সাইটের ডিজাইন ইত্যাদি থিমের উপর নির্ভর করে। থিম যত ভালো হবে আপনার অর্গানিক ভিজিটর তত বেড়ে যাবে। বর্তমানে ওয়ার্ডপ্রেস থেকে অনেক থিম ফ্রিতে দেই কিন্তু একটি ভালো মানের এবং সুন্দর ডিজাইনের থিম কেনা অত্যন্ত জরুরি। থিম ফরেস্ট থেকে অনেক সুন্দর সুন্দর ওয়ার্ডপ্রেস থিম পেয়ে যাবেন কিন্তু পেমেন্ট ম্যাথড না থাকলে বিকাশ, রকেট, নগদের মাধ্যমে বাংলাদেশ থেকেই থিম কিনতে পারবেন।
প্লাগইন: আপনার নিউজ সাইটে বেশি সুযোগ সুবিধা যোগ করতে চাইলে প্লাগইন অবশ্যই ব্যবহার করতে হবে। প্লাগইন প্রধানত দুই ধরনের হয়ে থাকে। প্রথমটি এসইও প্লাগইন যা ওয়েবসাইটের স্পিড, ইনডেক্স স্পিড, কন্টেন্ট ইত্যাদি ম্যানেজ করে। এই প্লাগইন গুলো সাধারণত ফ্রি পাওয়া যায় না এবং দাম অনেক বেশি হয়। এসইও প্লাগইন এর মধ্যে র‌্যাংকম্যাথ, ইয়োস্ট এসইও, ডব্লিউ পি রকেট বেশি জনপ্রিয়। এর মধ্যে র‌্যাংকম্যাথ গুগলে পোস্ট ইনডেক্স তাড়াতাড়ি করতে সাহায্য করে এবং সাথে অন্যান্য এসইও বিষয়ক দিক খেয়াল রাখে। ইয়োস্ট প্রায় র‌্যাংকম্যাথ প্লাগইনের মতোই কাজ করে। অপরদিকে ডব্লিউ পি রকেট ওয়েবসাইটের স্পিড অনেক বাড়িয়ে দেই। এসইও প্লাগইন গুলো আপনি বিভিন্ন স্থানে পেয়ে যাবেন। পেমেন্ট ম্যাথডের সমস্যা হলে বাংলাদেশের কোনো স্থান থেকে কিনে নিতে পারেন। অপরদিকে আরেক ধরনের প্লাগইন হলো উইডজেট প্লাগইন। এই প্লাগইন গুলোর সাহায্যে আপনি আপনার সাইটে নতুন নতুন সুযোগ সুবিধা যোগ করতে পারেন। সাধারণত ওয়ার্ডপ্রেসে এরকম প্লাগইন ফ্রিতে দেওয়া হয় তবে ওয়েবসাইট আরোও সুন্দর করতে চাইলে বাইরে থেকে প্রিমিয়াম প্লাগইন কিনে নিতে পারেন।
 
আপনার নিউজ সাইট ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে তৈরি করতে চাইলে এই জিনিস গুলো অবশ্যই প্রয়োজন। এর জন্য অনেক বেশি বাজেট রাখতে হবে। কিন্তু আপনি ভালো মানের আর্টিকেল লিখতে পারলে খুব সহজেই খরচ করা টাকা তুলে নিতে পারবেন। এবার চলুন দেখে নিই ব্লগার দিয়ে নিউজ সাইট তৈরি করলে কেমন খরচ হবে।
 
 

ব্লগার দিয়ে নিউজ সাইট তৈরি
 

বর্তমানে ফ্রিতে ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য ব্লগার সর্বোত্তম প্লাটফর্ম। অনেক নিউজ সাইট আছে যেগুলো ব্লগার দিয়ে তৈরি। আপনি ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইটে সুন্দর সুন্দর ডিজাইন করতে পারবেন কিন্তু বিভিন্ন ধরনের সুযোগ সুবিধা খুব বেশি যোগ করতে পারবেন না। আবার ব্লগারে এসইও করতে গেলে অনেক কষ্ট করতে হয়। কিন্তু কম বাজেটের ক্ষেত্রে ব্লগার একটি ভালো মাধ্যম। চলুন দেখে নিই ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করতে হলে কি কি প্রয়োজন।
থিম: ব্লগারের ক্ষেত্রে সবথেকে প্রয়োজন থিম। যদিও ব্লগার থেকেই অনেক গুলো থিম ফ্রিতে দেই কিন্তু সেগুলো তেমন ভালো না এবং ভালোভাবে ডিজাইন করা যায় না। অপরদিকে একটি সুন্দর কাস্টম থিম আপনি ডিজাইন করতে পারবেন। বর্তমানে ইন্টারনেটে ফ্রিতে প্রচুর কাস্টম ব্লগার থিম পাওয়া যায় কিন্তু সেগুলোর ফুটার ক্রেডিট আপনি পরিবর্তন করতে পারবেন না। তাই একটি প্রিমিয়াম কাস্টম থিম কেনা লাগবে। বর্তমানে ব্লগার জনপ্রিয় হয়ে ওঠাই থিম গুলোর দাম অনেক বেড়ে গিয়েছে। তবে কেও যদি কিনে থাকে তাহলে তার কাছ থেকে কম টাকাই থিম কিনে নিতে পারেন।

ডোমেইন: ব্লগার ফ্রিতে একটি সাবডোমেইন দেই। আবার সেই সাবডোমেইনে গুগল এডসেন্স এপ্রুভ হয়। কিন্তু একটি ভালো মানের নিউজ সাইট তৈরি করতে হলে অবশ্যই ডোমেইন প্রয়োজন। সাবডোমেইন ব্যবহার করলে আপনার সাইট বেমানান হয়ে যাবে এবং গুগল বর্তমানে সাবডোমেইনকে বেশি প্রাওরিটি দেই না তাই ভিজিটর পাওয়া মুশকিল হয়ে যায়। অতএব একটি ডোমেইন কেনা অত্যন্ত জরুরি।
 

ব্লগার দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করলে আপনাকে আলাদা করে হোস্টিং খরচ দেওয়া লাগবে। আবার এসইও ফ্রেন্ডলি পোস্ট ব্লগার দিয়ে সহজেই করা যায়। স্পিডের দিক থেকে দেখতে গেলে ভালো মানের থিম ব্যবহার করলে ব্লগার ওয়েবসাইটেও স্পিড অনেক বেড়ে যায়। নতুনদের ক্ষেত্রে ব্লগার দিয়ে নিজের নিউজ সাইট তৈরি করতে পারেন। যাদের বাজেট কম তাদের ক্ষেত্রে আমি রিকোমেন্ড করবো আপনারা ব্লগার ব্যবহার করুন।
 
 

কোডিং করে নিউজ সাইট
 

আরেক ভাবেও আপনি নিউজ সাইট তৈরি করতে পারেন। এর জন্য আপনাকে কোডিং সম্পর্কে ধারণা রাখতে হবে। বর্তমানে অনেকে পিএইচপি স্ক্রিপ্টের মাধ্যমে ওয়েবসাইট তৈরি করছে। তবে এক্ষেত্রেও আপনাকে অনেক খরচ করা লাগবে। প্রথমত হোস্টিং এবং ডোমেইন প্রয়োজন। এরপর নিজে কোডিং না পারলে কোনো ওয়েব ডেভেলপার কে দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করিয়ে নিতে হবে যা অত্যন্ত ব্যয়বহুল। বড় বড় নিউজ কোম্পানি গুলো তাদের সাইট কোডিং এর মাধ্যমে তৈরি করে। কিন্তু আপনার বাজেটে হলে আপনিও কোডিং করে ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

 
 
 
নিউজ সাইটে এসইও
 

নিউজ সাইটের ক্ষেত্রে সবথেকে কঠিন বিষয় হলো এসইও করা। বর্তমানে প্রচুর নিউজ সাইট তৈরি হয়েছে এবং হচ্ছে। তাদের সাথে টক্কর দেওয়ার জন্য এসইও সম্পর্কে প্রচুর জ্ঞান থাকতে হবে এবং তার প্রয়োগ করতে হবে। একটি বড় নিউজ কোম্পানি তাদের সাইটকে র‌্যাংকে আনার জন্য প্রচুর টাকা খরচ করে। তারা অনেক বড় বড় এসইও এক্সপার্ট হায়ার করে। কিন্তু আপনার সেই সামর্থ্য নাও থাকতে পারে তাই নিজেই কাজ চালাতে হবে। এসইও সম্পর্কে ব্যাসিক ধারণা থাকলেও শুধু আর্টিকেলের জোরে আপনি সফল হতে পারেন। আর্টিকেল কে ওয়েবসাইটের কিং বলা হয়। আপনি যত ভালো আর্টিকেল লিখবেন তত র‌্যাংক করবে।
 
 
নিউজ সাইটের ক্ষেত্রে কিছু কিলার টিপস।
 

আমরা জানি যে নিউজ সাইটে ব্যবহৃত কিওয়ার্ড গুলো বেশিদিন ট্রেডিং এ থাকে না। সেক্ষেত্রে আমাদের পুরনো আর্টিকেল গুলো বলতে গেলে আবর্জনা হিসেবে পড়ে থাকে। এখন আমি কিছু টিপস নিয়ে আলোচনা করবো যেগুলো ফলো করলে আপনার সাইটে ভিজিটরের একটি সাম্যবস্থা তৈরি হবে।
 
 
টিপস:-
  • যে কিওয়ার্ড গুলোতে সবসময়ই সার্চ ভলিউম বেশি সেগুলো পোস্ট করুন এবং র‌্যাংক করান। এতে আপনার সাইট একটি শক্ত স্থান লাভ করবে।
  • নিউজের বাইরে অন্যান্য বিষয় নিয়ে আলোচনা করুন যেমন সাস্থ্য, টেকনোলজি, সেলিব্রেটিদের নিয়ে ইত্যাদি।
  • একটি কোম্পানির নিউজ তৎক্ষনাৎ পেতে তাদের অফিসিয়াল ব্লগ ফলো করুন। যেমন গুগল তাদের নতুন আপডেট সবসময় তাদের অফিসিয়াল ব্লগে প্রকাশ করে।
  • বড় বড় কোম্পানির অফিসিয়াল ব্লগ ইমেইল সাবস্ক্রিপশন করে রাখুন যেনো নতুন আপডেট তৎক্ষনাৎ পেয়ে যান।
  • টাকার বিনিময়ে কিছু আর্টিকেল রাইটার রাখতে পারেন এতে আপনার সময় অনেক বেচে যাবে।
  • চেষ্টা করুন সবার আগে নিউজ প্রকাশ করার।

এই টিপস গুলো আশাকরি কিছুটা কাজে আসবে। বড় বড় নিউজ কোম্পানি গুলোর সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য আপনাকে আরোও ট্রিকস বেছে নিতে হবে।

 
 
আমাদের শেষ কথা
 
 
বর্তমানে জনপ্রিয় ব্লগিং নিশের মধ্যে নিউজ নিশ অন্যতম কারণ নিউজ সাইট থেকে প্রচুর ভিজিটর পাওয়া যায় আর ভিজিটর পাওয়া গেলে ইনকাম অবশ্যই অনেক বেশি হয়। আপনি একজন ভালো আর্টিকেল রাইটার হয়ে থাকলে অথবা একজন আর্টিকেল রাইটার হওয়ার সপ্ন থাকলে নিজস্ব সাইট খুলে সেখানে কাজ শুরু করে দিন। নিউজ সাইটের ক্ষেত্রে সবসময় এক্টিভ থাকতে হয় যার কারনে প্রচুর কাজ করা লাগবে। একটি অফিসে আর্টিকেল রাইটার হিসেবে কাজ করলে এর থেকে বেশি কাজ করা লাগতো। তার থেকে ভালো নিজের একটি ওয়েবসাইটে আর্টিকেল লিখে ইনকাম করা। নিউজ সাইটে সব দিক থেকে অনেক বেশি সুযোগ সুবিধা পায় এবং এসব সাইটের ভিজিটর অনেক বেশি থাকে। আপনি ভালো ভাবে নিউজ উপস্থাপন করতে পারলে একটি সাইট খুলতে পারেন। বাজেটের ক্ষেত্রে অবশ্যই প্রফেশনাল ভাবে কাজ করতে গেলে বাজেট অনেক বেশি রাখতে হবে। আবার আপনাকে অনেক এসইও শেখা লাগবে। বর্তমানে অনলাইনে প্রচুর কোর্স আছে যেখানে খুব সুন্দর ভাবে এসইও শেখানো হয়। শেখান থেকে একটি এসইও কোর্স করতে পারেন।
 
 

আজ এ পর্যন্তই। আশাকরি আর্টিকেলটি কিছুটা কাজে এসেছে। কোনো বিষয়ে না বুঝলে অবশ্যই কমেন্ট করবেন। আর প্রতিনিয়ত অসাধারন টেক নিউজ এবং টেক টিউটোরিয়াল পেতে আমাদের ওয়েবসাইটের সাথে থাকুন।
 

ধন্যবাদ সবাইকে

Leave a Comment